Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!.

বইমেলায় খণ্ডকালীন চাকরি করতে চাইলে | ejobscircular24

Government - Non Government job circular and news of Bangladesh

বইমেলায় খণ্ডকালীন চাকরি করতে চাইলে

বইমেলায় খণ্ডকালীন কর্মীর বেশির ভাগই নেওয়া হয় কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে  lছবি: প্রথম আলোবইমেলায় কাজের জন্য এরই মধ্যে প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলো সিভি সংগ্রহ করা শুরু করেছে। বেশির ভাগ প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানই ব্যক্তিগত যোগাযোগের মাধ্যমে লোক নিয়ে থাকে

মেলা চলাকালীন ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় সামাল দিতে প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলো ক্রেতাদের কাছে তাঁদের বই বিক্রয় ও উপস্থাপন করার জন্য নিয়মিত কর্মীর পাশাপাশি অভিজ্ঞ ও অনভিজ্ঞ খণ্ডকালীন বিক্রয়কর্মী বা বিক্রয় সহযোগী নিয়োগ করে থাকে। মেলায় বিক্রয়কর্মীর পাশাপাশি কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান ক্যাশিয়ার, জনসংযোগ কর্মকর্তা ইত্যাদি পদেও জনবল নিয়ে থাকে। ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েদেরকেও এসব প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ করা হয়। আর এসব কর্মীর প্রায় বেশির ভাগই নেওয়া হয় কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে।
বইমেলায় কাজের জন্য এরই মধ্যে প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলো সিভি সংগ্রহ করা শুরু করেছে। বেশির ভাগ প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানই ব্যক্তিগত যোগাযোগের মাধ্যমে লোক নিয়ে থাকে বলে জানান সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। তাই খোঁজখবর নিয়ে সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে আপনিও পেয়ে যেতে পারেন বইমেলায় খণ্ডকালীন এক মাসের চাকরি।
প্রথমা প্রকাশনের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী মো. জাকির হোসেন বলেন, ‘ফেব্রুয়ারি মাসের এই বইমেলায় আমাদের বই পাঠকদের কাছে প্রদর্শন ও বিক্রয়ের জন্য আমরা এক মাসের জন্য বিক্রয় সহযোগী নিয়োগ করি। গত বছর আমাদের স্টলে ১২ জন খণ্ডকালীন বিক্রয় সহযোগী নিয়োগ করেছিলাম। এ বছরও সিভি সংগ্রহ করা হচ্ছে। সিভি যাচাই-বাছাই করে মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে এ বছরও প্রায় ১৫ জন বিক্রয় সহযোগী নিয়োগ করা হবে।’

বইমেলায় বিক্রয়কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে তরুণেরাই বেশি অগ্রাধিকার পান। শিক্ষাগত যোগ্যতা দেখা হয় সর্বনিম্ন এইচএসসি পাস। জাকির হোসেন বলেন, মৌখিক পরীক্ষায় শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশাপাশি সাধারণত আবেদনকারীর কাজ করার আগ্রহ, উপস্থিত বুদ্ধি, উপস্থাপনার কৌশল, যোগাযোগের দক্ষতা, স্মার্টনেস ইত্যাদি বিষয় গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয়। মেলা চলাকালীন ভালো পারফরম্যান্স দেখাতে পারলে এই বইমেলা ছাড়াও সারা বছর বিভিন্ন বইমেলায় তাঁদেরকে কাজের সুযোগ দেওয়া হয়। অনেক ক্ষেত্রে তাঁদের দক্ষতা ও যোগ্যতা বিবেচনা করে স্থায়ীভাবেও নিয়োগ করা হয় বলে জানান জাকির হোসেন। একই কথা জানালেন সময় প্রকাশনের স্বত্বাধিকারী ফরিদ আহমেদ। তিনি বলেন, বইমেলায় খণ্ডকালীন বিক্রয়কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে এমনিতে পত্রপত্রিকায় তেমন একটা বিজ্ঞাপন দেওয়া হয় না, তবে প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোর মাধ্যমে বইমেলায় কাজের জন্য প্রার্থীদের কাছ থেকে সিভি চাওয়া হয়।
বইমেলার কাজের ধরন অন্যান্য যেকোনো কাজের চেয়ে একটু আলাদা। প্রতিদিন বইমেলা শুরু হয় বেলা তিনটা থেকে। চলে রাত আটটা পর্যন্ত। তবে ছুটির দিনগুলোতে বেলা ১১টা থেকে শুরু হয়ে মেলা চলে রাত ৮টা পর্যন্ত। মেলা চলাকালে বিক্রয় সহযোগীদের পুরোটা সময়ই স্টলে থাকতে হয়। দোকানের বইগুলো ক্রেতার কাছে সুন্দরভাবে প্রদর্শন করতে হয়। সেই সঙ্গে পাঠক-ক্রেতাদের চাহিদা ও পছন্দের দিকে বাড়তি খেয়াল রাখতে হয়। সংশ্লিষ্ট প্রকাশনা সংস্থার বই, লেখক ও পাঠকদের সম্পর্কে বাড়তি জ্ঞান রাখতে হয়।
আগের কোনো অভিজ্ঞতা ছাড়াই গত বছর একুশে বইমেলায় বিক্রয় সহযোগী হিসেবে প্রথমা প্রকাশনে কাজ করেছেন জেমস তন্ময় বিশ্বাস। তিনি বলেন, ‘ওই বছর আমি আমার এক আত্মীয়ের পরামর্শে প্রথমা প্রকাশনে সিভি পাঠাই। মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে নির্বাচিত হয়ে তাঁদের স্টলে কাজ শুরু করি।’ বর্তমানে তিনি পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষানবিশ হিসেবে প্রথমা প্রকাশনের বিক্রয় সহযোগী হিসেবে নিয়মিত কাজ করছেন। তন্ময় বিশ্বাস বলেন, বইমেলায় কাজ করাটা আসলেই খুব আনন্দের। এখানে লেখক-পাঠকদের সঙ্গে কথা হয়, নতুন বই সম্পর্কে জানা যায়, আর মাস শেষে কিছু বাড়তি আয়ও হয়। এক মাসের এই চাকরির অভিজ্ঞতা অন্য কোথাও চাকরির ক্ষেত্রে আবেদনপত্রে অভিজ্ঞতা হিসেবেও দেখানো যায় বলে জানান তিনি।
মেলায় খণ্ডকালীন ভিত্তিতে সুযোগ-সুবিধার ব্যাপার জানতে চাইলে জাকির হোসেন বলেন, মেলায় প্রত্যেক বিক্রয় সহযোগী প্রতিষ্ঠানভেদে এই এক মাসে অনায়াসে আট থেকে দশ হাজার টাকা সম্মানী হিসেবে আয় করতে পারেন। এ ছাড়া দুপুরের খাবার, সন্ধ্যার নাশতাসহ নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যাবে।

No comments:

Post a Comment

Copyright © ejobscircular24