Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!.

প্রধানমন্ত্রী বরাবর বিসিএস উত্তীর্ণদের খোলা চিঠি | ejobscircular24

Government - Non Government job circular and news of Bangladesh

প্রধানমন্ত্রী বরাবর বিসিএস উত্তীর্ণদের খোলা চিঠি

প্রিয় মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী,

যথাবিহীত সম্মান প্রদর্শনপূর্বক সবিনয় নিবেদন এই যে, আমি খোরশেদ আলম ৩৫তম বিসিএস পরীক্ষায় নন-ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত। আমি ৩৫তম বিসিএস পরীক্ষাসহ মোট তিনটি বিসিএস পরীক্ষায় চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ হয়েছি; কিন্তু বাংলাদেশ সরকারী কর্ম কমিশন আমাকে ‘পদ স্বল্পতা’র কারণে নন-ক্যাডার হিসাবে সুপারিশ করে। অদ্যাবধি নন-ক্যাডার থেকে চাকুরীর জন্য সুপারিশপ্রাপ্ত হইনি।

তাই ৩৫তম বিসিএসে নন-ক্যাডার থেকে চাকুরীর জন্য সুপারিশপ্রাপ্ত হই কিনা জানিনা! এমতাবস্থায়, অনেকটা নিরুপায় হয়ে আমাদের শেষ আশ্রয়স্থল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা, গণতন্ত্রের মানস কন্যা, জননেত্রী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনার দ্বারস্থ হলাম। অসহায়, গরীব-দুঃখী এবং সম্বলহারা মানুষের দুঃখ, দুর্দশা দূরীকরণে আপনি যেভাবে সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণ করেন এবং সাহায্যের মমতাময়ী হাত বাড়িয়ে দেন; আমরা আশাবাদী, আমাদের মত অসহায়, বেকার এবং মানসিক হতাশাগ্রস্ত নন-ক্যাডারদের বেলায়ও এমন দৃঢ় প্রদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।আমরা আরও আশাবাদী, আপনি সকল নন-ক্যাডারদের নিয়োগ প্রদানে প্রয়োজনীয় সুব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ এবং অধিদপ্তর সমূহকে জাতির জনকের মতই বজ্র কণ্ঠে নির্দেশ দিবেন। এ বিষয়ে মমতাময়ী মায়ের নিকট আমরা ছেলে হিসেবে মানবিক আকুতি তুলে ধরলামঃ

(১) বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিজ হাতে গড়া গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহান সংবিধানে উল্লেখ আছে, রাষ্ট্রের প্রতিটি নারী-পরুষ চাকুরীতে নিয়োগের ক্ষেত্রে সমান সুবিধা লাভ করবে। আমরাও মহান সংবিধানে রক্ষিত সেই সমান সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার দাবিদার।

(২) বাংলাদেশ সরকারী কর্ম কমিশন প্রতিটি বিসিএসের চূড়ান্ত ফলাফল দেয়ার সময় দেখা যায় ‘পদ স্বল্পতা বা শুন্য পদের সংখ্যা কম’ থাকায় সকলকে ক্যাডার হিসাবে সুপারিশ প্রাপ্ত না করে ননক্যাডারে সুপারিশ করে।

কিন্তু শুন্য পদের সংখ্যা কম বা পদের স্বল্পতা হলে কিভাবে বাংলাদেশ সরকারী কর্ম কমিশন পরবর্তী বিসিএস পরীক্ষার আয়োজন করে? পূর্বের বিসিএসে চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণদের পরবর্তীতে সৃষ্ট শুন্য পদের জন্য ক্যাডার হিসাবে সুপারিশ না করে কেন আরেকটি বিসিএস পরীক্ষা গ্রহণের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে?

(৩) ফলে যারা আগের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলো তারা কিভাবে নিশ্চিত হবে যে, পরবর্তী বিসিএসে তারা আবার ২০০ নম্বরের প্রিলিমিনারী, ৯০০ নম্বরের লিখিত এবং ২০০ নম্বরের ভাইবায় উত্তীর্ণ হবে? এছাড়া এত নিরলস পরিশ্রম আর নির্ঘুম অধ্যবসায়ের পরও যদি কোন প্রার্থী ক্যাডার হিসাবে সুপারিশ প্রাপ্ত না হয়, তাহলে তার মানসিক আর সামাজিক অবস্থা কেমন হয় তা কেবল নন-ক্যাডার হিসাবে সুপারিশ প্রাপ্ত ব্যক্তিরাই অনুধাবন করে। মরার উপর খাড়ার ঘাঁ হয় যখন ক্যাডার থেকেও একটি চাকুরী যখন ভাগ্যে না জোটে।

(৪) বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যায়, বর্তমানে প্রজাতন্ত্রের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তর সমূহে শুধু ‘প্রথম শ্রেণি’ পদ মর্যাদার ৩৯,০০০ (ঊনচল্লিশ) হাজার আর ‘দ্বিতীয় শ্রেণি’ পদ মর্যাদার ৪০,০০০(চল্লিশ) হাজার পদ শুন্য। আমরা কি শুন্য থাকা ৩৯,০০০ (ঊনচল্লিশ হাজার) প্রথম শ্রেণি পদ মর্যাদার মাঝে একটি চাকুরী পাওয়ার যোগ্য নই? পত্রিকা মারফত আমরা এও জানতে পারি; বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তর সমূহ বাংলাদেশ সরকারী কর্ম কমিশন প্রেরিত পত্রের সাড়া দিচ্ছে না! অথচ বর্তমান সরকার ননক্যাডার থেকে প্রথম শ্রেণি নিয়োগের উদ্দেশ্যে “নন-ক্যাডার নিয়োগ (বিশেষ) বিধিমালা ২০১০” এবং পরে সেই বিধিমালা সংশোধন করে প্রথম শ্রেণি ও দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে নিয়োগের জন্য নন-ক্যাডার নিয়োগ (বিশেষ) বিধিমালা ২০১৪ ” প্রণয়ন করে। বিসিএসে উত্তীর্ণ সবাই কেন চাকুরী পাচ্ছে না?

 (৫) ৩৫তম বিসিএস ছাড়াও সকল বিসিএসে উত্তীর্ণদের সরকারী চাকুরীতে নিয়োগ প্রদান করলে দেশের আপামর সাধারণ জনগণের পক্ষে সরকারের দৈনন্দিন সেবা পেতে সহজতর হবে। এতে আমাদের অনেকেরই মনের লালিত স্বপ্ন সত্যি হবে, অনেকে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি পাবে। একই সাথে উপকৃত হবে চাকুরী পাওয়া ব্যক্তি, তার পরিবার, সরকার, সর্বোপরি রাষ্ট্র। সেই সাথে উত্তরোত্তর বাড়বে বর্তমান সরকারের সুনাম, আস্থা আর সাধারণ মানুষের অকৃত্রিম ভালোবাসা! আমরা আপনার ভিশন ২০২১ এবং ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়নে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারব ইনশা-আল্লাহ।

 অতএব, উপর্যুক্ত বিষয় গুলো সদয় সুবিবেচনায় নিয়ে আপনার সুপ্রজ্ঞার একটি মানবিক পদক্ষেপ আর সংশ্লিষ্ট সকলকে যুগোপযুগী সাবলীল নির্দেশনাই পারে আমাদের মনোবাসনা পূর্ণ করতে ও জীবনে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে এবং দিতে পারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার সুবর্ণ সুযোগ। বঙ্গবন্ধু’র আদর্শ ও সাহসী সৈনিক হিসাবে দেশ মাতৃকার মহান দায়িত্ব পালন করার সুযোগ দিলে আমরা আপনার নিকট চিরকৃতজ্ঞ থাকব। (৩৫তম বিসিএসে নন-ক্যাডারদের পক্ষে খোরশেদ আলম)

 

 


No comments:

Post a Comment

Copyright © ejobscircular24