Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!.

বিসিএস বনাম মুখস্তবিদ্যা | ejobscircular24

Government - Non Government job circular and news of Bangladesh

বিসিএস বনাম মুখস্তবিদ্যা

বিসিএস বনাম মুখস্তবিদ্যা

Bank-Job

লাইভ প্রতিবেদক: বিসিএস পাস করলেই যে একজন মানুষ অনন্ত জীবন, যৌবন, রাজত্বের অধিকারী হয়ে যাবেন এ কথাটা যে ঠিক নয়। বিসিএস আর দশটা চাকুরির মতই একটা চাকুরি, এতে নানারকম সমস্যা আছে- ভালো দিকও আছে। কাজেই, বিসিএস “ফেটিশ” কোন ভালো জিনিস নয়।

জগৎটা অনেক বড়, জীবনটাও। বিসিএস না হলে আমি ওয়ার্থলেস- এরকম চিন্তাভাবনা না করে ঠান্ডা মাথায় পরীক্ষা দিলে বরং সাফল্যের সম্ভাবনা বেশি থাকে।

হ্যাভিং সেইড অল দ্যাট, ইদানীং কিছু কিছু মানুষের বিসিএস নিয়ে উদ্ভট সব সমালোচনা করতে দেখি। গঠনমূলক সমালোচনা সুস্বাগতম- বিসিএস এর সিস্টেমে বিশাল সব সমস্যা আছে এটা কে না জানে! নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ হতে দীর্ঘসূত্রতা, ত্রুটিপূর্ণ কোটা ব্যবস্থা, প্রশ্নপত্রের ধরণ নিয়ে সমস্যা- এগুলো নিয়ে আলাদা আলাদা লেখা হতে পারে। এসব হচ্ছে গঠনমূলক সমালোচনা।

যেটা গঠনমূলক সমালোচনা নয়, সেটা হচ্ছে নীচের লাইনের কথাবার্তাগুলোঃ

(এক) “ধুর, মাথায় কিচ্ছু না রেখে গাদা গাদা তথ্য মুখস্ত করেই বিসিএস পাস করা যায়”

(দুই) “হিব্রু আর পালি সাহিত্য পড়ে আসা ফেলটুস ছাত্রগুলো এসে বিসিএস পরীক্ষা দিয়ে ভালো ছাত্র ডাক্তার আর ইঞ্জিনিয়ারদের উপরে মাতব্বরি করে”

প্রথম টাইপের মন্তব্য যিনি করেন, তিনি সম্ভবত প্রিলি পরীক্ষার প্রশ্ন দেখে এরকম বলেন। এ ব্যাপারে সঠিক তথ্য হচ্ছে, প্রিলি পরীক্ষা হল বাছাই পরীক্ষা- কয়েক লক্ষ পরীক্ষার্থীদের ভেতর থেকে কয়েক হাজারকে লিখিত পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত করতে এ পরীক্ষাটি নেয়া হয়। এটাতে শুধু পাস/ফেল থাকে, এই নম্বর মেধাক্রম নির্ণয়ে কোন ভূমিকা রাখেনা।

কাজেই, “বারাক ওবামা কোন টয়লেট পেপার ব্যবহার করেন” টাইপ তথ্য মুখস্ত করেই আপনি বিসিএস পাস করবেন- এরকম সম্ভাবনা নেই। নয়শ মার্কসের লিখিত আর দুইশ মার্কসের ভাইভা দেয়া লাগবে, এবং এর জন্যে যথেষ্ট খাটাখাটুনি করা লাগবে।

দ্বিতীয় টাইপের মন্তব্যের অন্তর্নিহিত সমস্যাটি সত্যি। জেনারেল ক্যাডারে (পুলিশ, এ্যাডমিন, পররাষ্ট্র ইত্যাদি) প্রতিদ্বন্দ্বিতাটা যেমন তীব্র হয়, এসব সার্ভিসে লজিস্টিক সুযোগ সুবিধা টেকনিকালদের চাইতে কোন কোন ক্ষেত্রে বেশি।

অসামঞ্জস্য আছে অনেক ক্ষেত্রেই। কিন্তু এই অসামঞ্জস্য প্রকাশ করতে গিয়ে যে অশ্লীলভাবে জেনারেলিস্ট ক্যাডারদের সমালোচনা করা হয়- এটা ঠিক না। প্রথমত, মেডিকেল আর ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে এসেছে বলে একজন ছাত্র হিব্রু আর পালি সাহিত্যে পাস করা একটা ছেলের চাইতে বেশি “মেধাবী”- এটা একটা ঔদ্ধত্বপূর্ণ, নিরর্থক আত্মশ্লাঘা। দ্বিতীয়ত, জেনারেল ক্যাডারগুলোতে সবাই পরীক্ষা দেন- বিষয় এখানে মূখ্য নয়। পুলিশে আমার ব্যাচে ইঞ্জিনিয়ার আছেন প্রায় ত্রিশ জনের মত।

সমালোচনা হোক, সিস্টেমের ত্রুটিগুলো নিয়ে একেবারে মাইক্রস্কোপিক ডিটেইলে আসুক একের পর এক লেখা। কিন্তু এই সমালোচনা করতে গিয়ে আমরা যেন না জেনে কাউকে হেয়, তুচ্ছ তাচ্ছিল্য না করি- এটা মাথায় রাখা উচিত।

এইটুকু একটা দেশ, এর মধ্যে এত ভেদাভেদ, কাটাছেঁড়া করলে আর বাকি কি থাকে?!

ঢাকা // ৮ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// আইএইচ

No comments:

Post a Comment

Copyright © ejobscircular24