Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!.

আঁধার ঘরে আলোর ঝিলিক বিসিএস ক্যাডার শাবি ছাত্র শফিকুল | ejobscircular24

Government - Non Government job circular and news of Bangladesh

আঁধার ঘরে আলোর ঝিলিক বিসিএস ক্যাডার শাবি ছাত্র শফিকুল

আঁধার ঘরে আলোর ঝিলিক বিসিএস ক্যাডার শাবি ছাত্র শফিকুল

shofikul

মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম খন্দকার। গ্রামের সহজ-সরল এই ছেলেটি এখন বিসিএস ক্যাডার হয়েছেন। মা নিরক্ষর। বাবা পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। এমন ঘরে জন্ম নিয়েও আজ তিনি স্বপ্ন পূরণে সফল হয়েছেন। এ যেন আঁধার ঘরে চাঁদের আলো। শফিকুলের মুখেই শুনে নেয়া যাক তার বিসিএস ক্যাডার হয়ে উঠার গল্প :

অামি মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম খন্দকার। বাবা প্রয়াত আব্দুর রশিদ খন্দকার। মা রহিমা আক্তার। আমার জন্ম ১৯৮৬ সালের ২৫ শে ডিসেম্বর নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা থানার নয়াপাড়া গ্রামে।

পাঁচ ভাই দুই বোনের মধ্যে আমি তৃতীয়। বাবা পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করলেও মায়ের আরবী ছাড়া বাংলায় কোন অক্ষরজ্ঞান ছিল না। আমিই মাকে নাম-দস্তখত শিখিয়েছিলাম।

আমার পড়াশোনার হাতেখড়ি হয় গ্রামের মসজিদে “মসজিদ ভিত্তিক সমন্বিত উপআনুষ্টানিক শিক্ষা বিস্তার প্রকল্প ” এর অধীনে। এখানে আমি ছিলাম বয়স্ক লোকদের মাঝে সর্বকনিষ্ট সদস্য। নুর মোহাম্মদ হুজুর অতি যত্ন সহকারে আমাকে বাংলা, ইংরেজি, আরবী বর্ণমালাসহ অংকের প্রাথমিক বিষয়গুলো শিক্ষা দেন। এখানে মাত্র চার মাস পড়াশোনা করে আমার অনেক উন্নতি হয়।

এরপর প্রকল্পটি হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায়। এর কিছুদিন পর আমার চাচাত ভাইকে ধরে আমি পূর্বধলা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণীতে ভর্তি হই। চতুর্থ শ্রেণিতে আমার রোল নং হয় দুই। তখন থেকে বাবা মা আমার প্রতি গুরুত্ব দেন। পঞ্চম শ্রেণিতে আমার রোল নং হয় এক এবং সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি পাই।

এরপর পূর্বধলা জগৎমনি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তির সময় আমার রোল নং ছিল ১২২। সপ্তম এবং অষ্টম শ্রেণিতে রোল নং থাকে দুই। অষ্টম শ্রেণিতে টেলেন্টপুলে বৃত্তি পাই। উক্ত বিদ্যালয় থেকে এসএসসিতে বিজ্ঞান বিভাগে উত্তীর্ণ হয়ে পূর্বধলা ডিগ্রি কলেজে হতে এইচএসসি সম্পন্ন করি।

ভর্তি হই সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিসংখ্যান বিভাগে। সেখান থেকে পরিসংখ্যানে এমএসসি সম্পন্ন করে একটি স্কুলে গণিতের শিক্ষক হিসেবে ছয় মাস শিক্ষকতা করি।

অনার্সে ভর্তি হওয়ার পর থেকে বিসিএসের প্রতি আমার স্বপ্ন দানা বাঁধতে থাকে। ৩৫তম বিসিএসে শিক্ষা ক্যাডারে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হয়ে মনের মধ্যে জমে থাকা লালিত স্বপ্নটা যেন বাস্তবে পরিণত হল।

আমার এই সফলতার পেছেনে মহান আল্লাহ পাকের অশেষ রহমতের পাশাপাশি আমার মায়ের দোয়া, এলাকাবাসী ও শিক্ষকদের ভালবাসা, অধ্যাবসায় ও মনের প্রবল ইচ্ছা প্রভাবক হিসেবে কাজ করেছে।

আমার একটা অভ্যাস ছিল আমি কোন দিন কিছু না বুঝে মুখস্থ করিনি। আলহামদুলিল্লাহ আল্লাহপাক আমাকে অনেক বড় নিয়ামত দান করলেন। আমি সবার কাছে দোয়া প্রার্থী।

মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম খন্দকার
বিসিএস (শিক্ষা)
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যাল

[কার্টেসি : নেত্রবার্তা]

ঢাকা, ০৬ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন

No comments:

Post a Comment

Copyright © ejobscircular24