Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!.

ejobscircular24 | Government - Non Government job circular and news of Bangladesh

ejobscircular24

Government - Non Government job circular and news of Bangladesh

Bangladesh Petroleum Corporation Job Circular on April 2017

Bangladesh Petroleum Corporation Job Circular on April 2017

Bangladesh Petroleum Corporation Job Circular on April 2017    

Published on: April 28, 2017

Job Type : Governments  Jobs

Salary Range : 22,490-67,010

Vacancy : 14

Source : The Daily Ittefaq

Application Deadline: May 30, 2017

For Job Recruitment See Bellow this full Notice

Applicant must enclose his/her Photograph with CV.

Application Deadline : May 30, 2017



Bangladesh Petroleum Corporation Job Circular on April 2017
Read more ›››

OnnoRokom Electronics Company Ltd Job Circular on April 2017

OnnoRokom Electronics Company Ltd Job Circular on April 2017


Sales Representative

OnnoRokom Electronics Company Ltd.

Category: Marketing/Sales
Vacancy
  • 08
Job Context
  • Candidate has to attend a Two Months Residential Training Program.
  • The Company will bear the total expenditure of the training program (House rent, Dining, Conveyance etc).
Job Description / Responsibility
  • Only freshers are encouraged to apply.
  • Our top 3 priorities from the training program are, 1. Learning attitude 2. Work ethics 3. Physical fitness.
  • The skills we will develop: Mind control, Ms Excel, Power Point, News Presentation, Communication with Unknown People, Customer Convince, Sales Technique.
  • After training the participants will receive Certificate, Crest and Job Offer.
Job Nature

Full-time

Educational Requirements
Any Intelligent person with positive mindset.
Job Requirements
  • Age 21 to 30 year(s)
  • Only males are allowed to apply.
  • Job holders are not allowed.
  • For any Query: 01708-166128
Job Location

Barisal Division, Sylhet Division

Salary Range
Negotiable
Other Benefits
  • Performance Based Annual Increment.
  • Opportunity for career growth.
  • Friendly Working Environment.
  • TA/ DA.
  • Mobile Handset & Corporate SIM Card.
  • Two Festival Bonus.
Job Source
  • Online Job Posting
Apply Instruction
Send your CV to hrd@onnorokom.com

Application Deadline : May 4, 2017


Company Information

OnnoRokom Electronics Company Ltd.

Address : A.R.A Bhaban (2nd Floor), 39, Kazi Nazrul Islam Avenue, Kawran Bazar, Dhaka-1215


Read more ›››

Inspiration: এই লেখাটি আপনার জীবনকে বদলে দিতে পারে !!!

।।আশাকরি এই লেখাটি আপনার জীবনকে বদলে দেবে।।



২৭ বছর বয়সে যখন হন্যে হয়ে ব্যাংকে চাকরি খুঁজছেন, তখন আপনারই বয়েসি কেউ একজন সেই ব্যাংকেরই ম্যানেজার হয়ে বসে আছেন।
আপনার ক্যারিয়ার যখন শুরুই হয়নি, তখন কেউ কেউ নিজের টাকায় কেনা দামি গাড়ি হাঁকিয়ে আপনার সামনে দিয়েই চলে যাচ্ছে।
কর্পোরেট যে সবসময় চেহারা দেখে প্রমোশন দেয়, তা নয়। দিন বদলাচ্ছে, কনসেপ্টগুলো বদলে যাচ্ছে।শুধু
বেতন পাওয়ার জন্য কাজ করে গেলে শুধু
বেতনই পাবেন। কথা হল, কেন এমন হয়? সব চাইতে ভালটি, সবচাইতে ভালভাবে করে কীভাবে?কিছু ব্যাপার এক্ষেত্রে কাজ করে। দুএকটি বলছি।
-
প্রথমেই আসুন পরিশ্রমের ব্যাপারটা। যারা আপনার চাইতে এগিয়ে, তারা আপনার চাইতে বেশি পরিশ্রমী।
এটা মেনে নিন। ঘুমানোর আনন্দ আর ভোর
দেখার আনন্দ একসাথে পাওয়া যায় না।
শুধু পরিশ্রম করলেই সব হয় না।তা-ই যদি হত, তবে গাধা হত বনের রাজা। শুধু পরিশ্রম করা নয়, এর পুরস্কার পাওয়াটাই বড় কথা।
আপনি এক্সট্রা আওয়ার না খাটলে এক্সট্রা
মাইল এগিয়ে থাকবেন কীভাবে? সবার দিনই তো ২৪ ঘণ্টায়। আমার এক বন্ধুকে দেখেছি, অন্যরা যখন ঘুমিয়ে থাকে তখন সে রাত জেগে আউটসোর্সিং করে।
ও রাত জাগার সুবিধা তো পাবেই! আপনি বাড়তি কী করলেন, সেটাই ঠিক করে দেবে, আপনি বাড়তি কী পাবেন। আপনি ভিন্ন কিছু করতে না পারলে, আপনি ভিন্ন কিছু পাবেন না।
বিল গেটস রাতারাতি বিল গেটস হননি। শুধু ভার্সিটি ড্রপআউট হলেই স্টিভ জবস
কিংবা জুকারবার্গ হওয়া যায় না। আমার মত অনার্সে ২.৭৪ (সি) জিপিএ পেলেই বিসিএস আর আইবিএ ভর্তি পরীক্ষায়
ফার্স্ট হয়ে যাওয়া যাবে না। আউটলায়ার্স বইটি পড়ে দেখুন। বড় মানুষের বড় প্রস্তুতি থাকে। নজরুলের প্রবন্ধগুলো পড়লে বুঝতে পারবেন,উনি কতটা স্বশিক্ষিত ছিলেন। শুধু রুটির দোকানে চাকরিতেই
নজরুল হয় না।
কিংবা স্কুল কলেজে না গেলেই রবীন্দ্রনাথ
হয়ে যাওয়া যাবে না। সবাই তো বই বাঁধাইয়ের দোকানে চাকরি করে মাইকেল ফ্যারাডে হতে পারে না, বেশিরভাগই তো সারাজীবন বই বাঁধাই করেই কাটিয়ে দেয়।
-
স্টুডেন্টলাইফে কে কী বলল, সেটা নিয়ে মাথা ঘামাবেন না। আমাদের ব্যাচে যে ছেলেটা প্রোগ্রামিং করতেই পারত না, সে এখন একটা সফটওয়্যার ফার্মের মালিক। যাকে নিয়ে কেউ কোনদিন স্বপ্ন দেখেনি, সে এখন হাজার হাজার মানুষকে স্বপ্ন দেখতে শেখায়। ক্যারিয়ার নিয়ে যার তেমন কোন ভাবনা ছিল না, সে সবার আগে পিএইচডি করতে আমেরিকায় গেছে। সব পরীক্ষায়
মহাউত্সাহে ফেল করা ছেলেটি এখন একজন সফল ব্যবসায়ী।
আপনি কী পারেন,কী পারেন না,এটা অন্য কাউকে ঠিক করে দিতে দেবেন না।
পাবলিক ভার্সিটিতে চান্স পাননি? প্রাইভেটে পড়ছেন? কিংবা ন্যাশনাল ভার্সিটিতে? সবাই বলছে,আপনার লাইফটা শেষ? আমি বলি,আরে! আপনার লাইফ তো এখনো
শুরুই হয়নি। আপনি কতদূর যাবেন,এটা ঠিক করে দেয়ার অন্যরা কে? লাইফটা কি ওদের নাকি?
আপনাকে ডাক্তার- ইঞ্জিনিয়ার হতেই হবে কেন? কিংবা ডাক্তারি পাস করে কেন ডাক্তারিই করতে হবে?
আমার পরিচিত এক ডাক্তার ফটোগ্রাফি করে মাসে আয় করে ৬-৭ লাখ টাকা। যেখানেই পড়াশোনা করেন না কেন, আপনার এগিয়ে যাওয়া নির্ভর করে আপনার নিজের উপর। শুধু 'ওহ শিট', 'সরি বেবি', 'চ্যাটিং ডেটিং' দিয়ে জীবন চলবে না। আপনি যার উপর ডিপেনডেন্ট,তাকে বাদ
দিয়ে নিজের অবস্থানটা কল্পনা করে দেখুন।
যে গাড়িটা করে ভার্সিটিতে আসেন, ঘোরাঘুরি করেন, সেটি কি আপনার নিজের টাকায় কেনা? ওটা নিয়ে ভাব দেখান কোন আক্কেলে?
-
একদিন আপনাকে পৃথিবীর পথে নামতে হবে। তখন আপনাকে যা যা করতে হবে, সেসব কাজ এখনই করা শুরু করুন। জীবনে বড় হতে হলে কিছু ভাল বই পড়তে
হয়, কিছু ভাল মুভি দেখতে হয়, কিছু ভাল মিউজিক শুনতে হয়, কিছু ভাল জায়গায় ঘুরতে হয়, কিছু ভাল মানুষের সাথে কথা বলতে হয়, কিছু ভাল কাজ করতে হয়।
জীবনটা শুধু হাশি ঠাট্টা করে কাটিয়ে দেয়ার জন্য নয়।একদিন যখন জীবনের মুখোমুখি দাঁড়াতে হবে, তখন দেখবেন, পায়ের নিচ থেকে মাটি সরে যাচ্ছে, মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ছে।
স্কিল ডেভেলাপমেন্টের জন্য সময় দিতে হয়। এসব একদিনে কিংবা রাতারাতি হয় না।" আপনার মত করে লিখতে হলে
আমাকে কী করতে হবে? আমি আপনার মত রেজাল্ট করতে চাই। আমাকে কী করতে হবে?" এটা আমি প্রায়ই শুনি। আমি
বলি, "অসম্ভব পরিশ্রম করতে হবে। নো শর্টকাটস্,  সরি! "রিপ্লাই আসে," কিন্তু পড়তে যে ভাল লাগে না। কী করা যায়? "এর উত্তরটা একটু ভিন্নভাবে দিই।
আপনি যখন স্কুল কলেজে পড়তেন, তখন যে সময়ে আপনার ফার্স্ট বয় বন্ধুটি পড়ার
টেবিলে মুখ থুবড়ে পড়ে থাকত,সে সময়ে আপনি গার্লস স্কুলের সামনে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতেন।
এখন সময় এসেছে, ও ওখানে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকবে আর আপনি পড়ার টেবিলে বসে থাকবেন।
-
জীবনটাকে যে সময়ে চাবুক মারতে হয়, সে সময়ে জীবনটাকে উপভোগ করলে, যে সময়ে জীবনটাকে উপভোগ করার কথা, সেসময়ে জীবনটাকে উপভোগ করতে পারবেন না, এটাই স্বাভাবিক।এটা মেনে নিন। মেনে নিতে না পারলে ঘুরে দাঁড়ান। এখনই সময়!
বড় হতে হলে বড় মানুষের সাথে মিশতে হয়, চলতে হয়, ওদের কথা শুনতে হয়। এক্ষেত্রে ভার্সিটিতে পড়ার সময় বন্ধু
নির্বাচনটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আপনার সাবকনশাস মাইন্ড আপনাকে আপনার বন্ধুদের কাজ দ্বারা প্রভাবিত করে।
আমরা নিজেদের অজ্ঞাতসারেই আমাদের চাইতে ইনফেরিয়র লোকজনের সাথে ওঠাবসা করি,কারণ তখন আমরা নিজেদেরকে সুপিরিয়র ভাবতে পারি। এ ব্যাপারটা সুইসাইডাল। আশেপাশে কাউকেই বড় হতে না দেখলে বড়হওয়ার
ইচ্ছে জাগে না।আরেকটা ভুল অনেকে করেন। সেটি হল, ধনীঘরের সন্তানদের সাথে মিশে নিজেকে ধনী ভাবতে শুরু করা। মানুষ তার বন্ধুদের দ্বারা প্রভাবিত হয়। উজাড় বনে তো শেয়ালই রাজা হয়। আপনি কী শেয়াল রাজা হতে চান, নাকি সিংহ রাজা হতে চান, সেটি আগে ঠিক করুন।


-
বিনীত হতে জানাটা মস্ত বড় একটা আর্ট। যারা অনার্সে পড়ছেন, তাদের অনেকের মধ্যেই এটার অভাব রয়েছে। এখনো আপনার অহংকার করার মত কিছুই নেই, পৃথিবীর কাছে আপনি একজন নোবডি মাত্র। বিনয় ছাড়া শেখা যায় না। গুরুর কাছ থেকে শিখতে হয় গুরুর পায়ের কাছে বসে।
আজকাল শিক্ষকরাও সম্মানিত হওয়ার চেষ্টা করেন না, স্টুডেন্টরাও সম্মান করতে ভুলে যাচ্ছে। আপনি মেনে নিন, আপনি ছোটো। এটাই আপনাকে এগিয়ে রাখবে। বড় মানুষকে অসম্মান করার মধ্যে কোন গৌরব নেই। নিজের প্রয়োজনেই মানুষকে সম্মান করুন।

সুশান্ত পাল
৩০তম বিসিএস
সম্মিলিত জাতীয় মেধা তালিকায় ১ম

লেখাটির Audio শুনতে পারেন ...............

Read more ›››

MINISTRY OF CULTURAL AFFAIRS JOB CIRCULAR

MINISTRY OF CULTURAL AFFAIRS JOB CIRCULAR

JOB DESCRIPTION

Company/Organization: Ministry of Cultural Affairs
Positions: Computer Operator, Office Assistant & Others
Qualification: See the circular
Salary: See the circular
Deadline: May 30, 2017

Job Source: Bd-pratidin
Published Date: April 29, 2017

Jobs post by bdjobfinder.org Desk

 



MINISTRY OF CULTURAL AFFAIRS JOB CIRCULAR
Read more ›››

আকর্ষণীয় পদে ক্যারিয়ার শুরু করুন মেটলাইফে

আকর্ষণীয় পদে ক্যারিয়ার শুরু করুন মেটলাইফে
আকর্ষণীয় পদে ক্যারিয়ার শুরু করুন মেটলাইফেক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ দিয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বিশ্বখ্যাত মেটলাইফ। বিজনেস অ্যানালিস্ট পদে এই নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগ্যতা যেকোনো বিষয়ে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। ন্যূনতম এক বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তবে সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে প্রার্থীদের অভিজ্ঞতা থাকলে তা বাড়তি যোগ্যতা হিসেবে বিবেচিত হবে। মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, স্প্রেডশিট, অ্যাকসেস ও আউটলুক ...বিস্তারিত
Read more ›››

বিসিএস টিপসঃ অলসদের জন্য

বিসিএস টিপসঃ অলসদের জন্য 


পর্ব ১: লাইফস্টাইল

আপনি যদি সিরিয়াস, কর্মঠ ও ভালো ছাত্র হয়ে থাকেন তাহলে এই লেখা আপনার জন্য নয়। কিন্তু আপনি যদি আমার মতো অলস, আকাইম্যা, ঘুমকাতুরে, ব্যর্থ, সাপ্লিখাওয়া ও ব্যাকবেঞ্চার হয়ে থাকেন তাহলে এই পরামর্শ গুলো আপনার বিসিএস পরীক্ষার জন্য কাজে লাগবে।
১. প্রথমেই কোচিং করার পরিকল্পনা বাদ দেন। আপনি যেহেতু অলস তাই জ্যাম ঠেলে কোচিং যাওয়া আসা, ক্লাস করা এসব আপনার পোষাবে না। তার চেয়ে বরং যে সময়টা রাস্তায় কাটাতেন সেই সময়টা ঘুমিয়ে কাটান। আর ক্লাসের সময়টা বাসায় বসে একটু পড়েন।
২. কোন স্ট্রিক্ট রুটিন করার দরকার নাই। কারন অলস মানুষ হিসেবে আপনি দেরিতে ঘুম থেকে উঠেন। নাস্তা খান দুপুরে, ভাত খান বিকালে। আপনার কোন কিছুরই ঠিক ঠিকানা নাই। তাই স্পেসিফিক রুটিন করলে ফলো করতে পারবেন না। ব্যর্থ হবেন। তাতে মন খারাপ হবে। হতাশা আসবে।
৩. পড়ায় সিরিয়াস হতে যেয়ে বিনোদন মূলক কাজকর্ম থেকে দূরে থাকবেন না। তাহলে মানসিক চাপ বাড়বে। বাংলাদেশের খেলা মিস দেওয়া যাবে না। বিকালে আপনার মতো আকাইম্যা বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিবেন। একটু ঘুরাঘুরি করবেন। ‘হাওয়া বদল’, ‘আশ্চর্য প্রদীপ’, ‘ভুতের ভবিষ্যত’ বা ‘আয়নাবাজি’ মতো বিনোদনমূলক চলচ্চিত্রগুলো দেখবেন। তবে হিন্দি সিরিয়াল দেখবেন না। মাথা নষ্ট হয়ে যাবে।
৪. পরীক্ষায় পাস করতে হবে এই চিন্তা বাদ দেন। আপনি সাপ্লিখাওয়া স্টুডেন্ট। ব্যর্থতা আপনার নিত্য সংগী। তাই পাস করতেই হবে এই চিন্তা করে মনের উপর চাপ বাড়ানোর দরকার নাই। ফুরফুরে থাকেন, নিজের মতো পড়েন। তারপর পাস করে গেলে লোকজন বলবে “পোলাডা যে জিনিয়াস এইডা কিন্তু আমি আগেই জানতাম”।
৫. আপনার বাসার লোকজন যেমন আব্বা, আম্মা, ভাইবোন সবাই আপনাকে বলবে “ওমুক বাড়ির আক্কাস মিয়ার পোলা মুকলেস জীবনে কত কিছু কইরা ফেলাইলো, তুই ঘুমাইয়া ঘুমাইয়া জীবনটা শেষ কইরা দিলি”। এসব কথা শুনার সাথে সাথে বইটা বন্ধ করে মনে মনে ভাববেন আপনি মুকলেস না। আপনি হচ্ছেন আপনি। আপনি বেশি ঘুমান মানে আপনি বেশি এনার্জেটিক। তাই সফলতার পিছনে না দৌইড়া নিজের উপর বিশ্বাস রাখেন। আর পরীক্ষার আগের ছয় মাস থেকে আত্মীয়স্বজন থেকে দূরে থাকেন।
আজ এই পর্যন্তই। পড়াশোনা কিভাবে করবেন সেটা আরেকদিন বলবো। তবে সেই কৌশলটাও হবে ঘুমের মতো আনন্দদায়ক



পর্ব ২: শুরুটা করবেন কিভাবে?

আমাদের মত অলসদের প্রধান সমস্যা কোন কাজ শুরু করা। আমরা অনেক অনেক পরিকল্পনা করি। তারপর ভাবি ঘুম থেকে উঠেই কাজ শুরু করবো। তারপর ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে টায়ার্ড হয়ে আবার ঘুমিয়ে রেস্ট নেই। তাই আজকের প্রধান আলোচনা কিভাবে পড়া শুরু করবেন। প্রথমেই বলে নেই আমি আপনাকে পড়ার টেকনিক শেখাবো না। সেটা সম্ভবও না। সবারই নিজস্ব টেকনিক আছে। আমি শুধু আপনাকে কয়েকটা কাজের কথা বলবো যেগুলো করলে আপনি বিভিন্ন ঝামেলা থেকে বেঁচে যাবেন।
১. আপনি নিশ্চয়ই বিভিন্ন সাজেশন, বড় ভাইয়ের হ্যান্ড নোট, বিভিন্ন কোচিং সেন্টারের লেকচার শিট, পেপারকাটিং এসব জোগার করে ফেলেছেন? এগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ন। সবগুলোকে একটা বস্তায় ভরুন। তারপর ফেরিওয়ালার কাছে বিক্রি করে সেই টাকায় আইসিক্রম খান।
২. প্রফেসর, ওরাকল, এমপিথ্রি, এস্যুরেন্স ইত্যাদি বিভিন্ন প্রকাশনীর বই একসেট করে এবং ডাইজেস্ট, এসএসসি ও এইচএসসি’র বোর্ডের বই, হুমায়ুন আজাদের লাল নীল দীপাবলী এসব কেনা হইছে? হয় নাই? কন কি? তাড়াতাড়ি যান। তারপর দোকানে যেয়ে সবগুলা নাম মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দেন। মনে রাখবেন আপনি অলস কিন্তু আঁতেল না। তারপর বেছে বেছে প্রতি সবাজেক্টের যেই বইটা আপনার কাছে সহজ লাগে সেটা কিনেন। কঠিন বই পড়ার কোন অতিরিক্ত সুবিধা নাই। আর যদি ইতিমধ্যে সবধরনের বইয়ের পাহাড় জমানো হয়ে যায় তাহলে দরকারী গুলো বাছাই করেন। আর বাকিগুলা আগের মতো বস্তায় ভরে বিক্রি করে সেই টাকায় কটকটি খান। মোটামোটা দুই একটা বই আলাদা রাখেন। কেন পরে বলতেছি।
৩. এতক্ষনে নিশ্চই জ্ঞানীগুনীরা আপনারে পরামর্শ দেওয়া শুরু করছে যে বিসিএস এ চান্স পেতে হলে ১২-১৩ ঘন্টা পড়াশোনা করতে হয়। কেউ কেউ নাকি ১৫ ঘন্টাও পড়ে। এইরকম পরামর্শ দিতে আসলে আগে সরাইয়া রাখা মোটা বইগুলা থেকে একটা তুলে তার মাথায় বাড়ি মারেন। কারন সে চাপাবাজ। হয় সে কখনোই বিসিএসে পাস করে নাই আর না হয় আপনাকে নার্ভাস করাই তার উদ্দেশ্যে।
৪. এখন কয়ঘন্টা পড়বেন? শুরুর ৫দিন কোন পড়াশোনার দরকার নাই। ঘুম, বিনোদন, খাওয়া দাওয়ার পর যে সময় পাবেন তা থেকে একঘন্টা সময় বের করে বইগুলো একটু ঘাটাঘাটি করুন। প্রতিটা পাতা উল্টিয়ে উল্টিয়ে দেখুন। কোন কিছু মুখস্ত করবেন না। শুধু টপিকগুলোর উপর চোখ বুলান। ২৪ ঘন্টায় মাত্র একঘন্টা সময় দিচ্ছেন, তাই সাবধান এই একঘন্টায়, নো মোবাইল, নো ফেসবুক, নো টিভি, নো আইপিএল, নো সানিলিওন, নো ফুশুর ফুশুর উইথ গার্লফ্রেন্ড/বয়ফ্রেন্ড। এই একঘন্টা শুধু অখন্ড মনযোগ।
৫. প্রথম পাঁচ দিনের পর দ্বিতীয় পাঁচ দিন দুইঘন্টা করে পড়বেন। এর মাঝে প্রতি আধাঘন্টায় ৫ মিনিট বিরতি দিবেন। তবে উঠবেন না। তার পরের পাঁচদিন তিন ঘন্টা। এভাবে ২৫ দিন পর আপনি দৈনিক ৬ ঘন্টা পড়াশোনার একটা রুটিনে পৌছবেন। তারপর আর বাড়নোর দরকার নাই। পরীক্ষার একমাস আগে পর্যন্ত আপনি এই ৬ ঘন্টার রুটিন চালিয়ে যাবেন। তবে এই ছয় ঘন্টা একটানা করার দরকার নাই। দুইঘন্টা পর পর ব্রেক নিবেন। অথবা সকালে তিনঘন্টা ও রাতে তিনঘন্টা এভাবেও পড়তে পারেন সেটা আপনার ইচ্ছা। কিন্তু যেভাবেই হোক দিনে ছয় ঘন্টা পড়তে হবে। ৬ ঘন্টার কোটা পুরন হওয়ার পর আপনি স্বাধীন। তারপর ফেসবুক, ক্রিকেট, সানিলিওন, দীপিকা, শাকিব, অপু সব চালাতে পারবেন।

পর্ব ৩: দ্য ম্যাজিক বুক

প্রথমে একটা গল্প দিয়ে শুরু করি। গ্রামের এক সহজসরল লোক তার দজ্জ্বাল বউয়ের জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে ঠিক করলো, আর না, এবার সে পরিবার ছেড়ে সন্ন্যাসী হয়ে যাবে। সেই পরিকল্পনা মতো এক রাতে নদীর ঘাটে যেয়ে নৌকায় চড়ে বসলো। সারারাত স্রোতের বিপরীতে নৌকা চালালো। সকাল বেলা দেখে নতুন এলাকাটা যেনো কেমন চেনা চেনা লাগে। গ্রামের এক মহিলা নদী থেকে পানি নিয়ে আসলো। তো সেই লোক সেই গ্রাম্য বধুকে জিজ্ঞেস করে “এটা কোন ঘাটগো মা”। মহিলা তার দিকে কতক্ষন তাকিয়ে থেকে বললো “ওরে মিনসে, তুই এখানে, আর সারারাত আমি খুজে মরছি। এখন আবার বউকে মা ডাকা হচ্ছে। গাজা, ভাং খেয়েছিস নাকি সারারাত?”। ততক্ষনে সেই লোক খেয়াল করলো, সে সারারাত নৌকা বেয়েছে ঠিকই, কিন্তু খুটির সাথে যে দড়ি দিয়ে নৌকা বাধা ছিলো সেটা খুলতেই তার মনে নেই।
যাকগে সেই বোকা লোকের কথা। আপনারা এখন বলুন আপনাদের কি কখনো এমন হয় নি, যে সারাদিন বই নিয়ে বসে আছেন। খাওয়া নাই, নাওয়া নাই কিন্তু দিন শেষে দেখা গেলো তেমন কিছুই পড়া হয় নাই। ঘুরেফিরে কয়টা পাতাতেই আটকে আছেন? আসলে এমন হয় কারন আপনি বই নিয়ে বসে ছিলেন ঠিকই, কিন্তু মনোযোগ ছিলো অন্যদিকে। যাদের এমন হয় তাদের জন্যই এই টিপস ‘দ্য ম্যাজিক বুক’। ম্যাজিক বুক কোন বই না। এটা একটা খাতা। সেটা বানাবেন আপনি নিজেই এবং নিজের জন্যই। কেমন হবে সেই ম্যাজিক বুক কৌশল দেখে নিন।
১. প্রথমেই একটা খাতা বানাবেন। সেটা ভালো মানের হার্ডকাভারের নোট বুক হলেই ভালো হয়। সস্তা জিনিস হলে গুরুত্ব এমনিতেই কমে যাবে। নোট বুকের প্রথম পাতায় সুন্দর করে যে পরীক্ষার জন্য প্রিপারেশন নিচ্ছেন সে পরীক্ষার নাম লিখেন।
২. তার পরের পৃষ্ঠায় যতগুলো সাবজেক্ট আছে, সবগুলোর নাম লিখেন। প্রতিটা সাবজেক্টের পাশে সে সাবজেক্টের যেসব বই কিনেছেন তার নাম লিখেন।
৩. তারপর যেকোন একটা পছন্দের সাবজেক্ট বাছাই করেন। পরের পৃষ্ঠায় সেই সাবজেক্টের নাম লিখে তার নিচে সেই সাবজেক্ট রিলেটেড গুরুত্বপূর্ন চ্যাপ্টার গুলোর নাম লিখেন।
৪. এবার আপনার আসল কাজ শুরু। প্রথমেই যেকোন একটা চ্যাপ্টার বাছাই করেন। বাছাই করে সে চ্যাপ্টারের কি কি টপিক আছে সেটার একটা লিস্ট তৈরী করেন। লিস্টটা গুরুত্বপূর্ন। টপিক বড় হলে সেটাকে কয়েক ভাগে ভাগ করে নেন। যেমন: জাতিসংঘ টপিকটা বড়। আপনি ভাগ করবেন এভাবে, জাতিসংঘ-১, জাতিসংঘ-২, জাতিসংঘ-৩। এমন ভাবে ভাগ করবেন যাতে একটা ভাগ/টপিক পড়তে বড়জোর ২০-২৫ মিনিট সময় লাগে।
৫. এখন ঠিক করেন আপনি প্রতিদিন অন্তত ৫টা টপিক পড়বেন। শুরুতে ১০ মিনিট টপিকটা রিভিশন দিবেন। তার পরের ১০ মিনিটে ভালো করে বুঝার চেষ্টা করেন। পরের ৫-১০ মিনিট আপনি সেই অংশটা ভালো করে রিভিশন দেন। এই পুরো ৩০ মিনিট হচ্ছে আপনার একটা লুপ। এই তিরিশ মিনিট অখন্ড মনযোগ দিতে হবে। এই সময় অবশ্যই আপনি ক্যান্ডিক্রাশ, সিওসি, ফেসবুক, আইপিএল, সানি লিওন, গার্লফ্রেন্ড/বয়ফ্রেন্ড ইত্যাদি থেকে দূরে থাকবেন। ৩০ মিনিট শেষ হওয়ার পর অবশ্যই এই টপিকটা পড়া বন্ধ করবেন ও পরবর্তী টপিকে যাবেন।
৬. প্রতিটা টপিক পড়া শেষ হওয়ার পর লিস্টে সেটার পাশে বড় করে গোল কিরে চিহ্ন দিবেন। যখনই আপনার মনে হবে ধুর কিছুই তো পড়া হলো না তখনই সেই লিস্টের দিকে তাকাবেন। সেই লিস্টের বড় বড় গোল করে দাগানো চিহ্নগুলোই আপনাকে মনে করিয়ে দিবে আপনার কিছু না কিছু পড়া হচ্ছে। প্রতিদিন ৫ টা করে টপিক পড়লেও তিরিশ দিনে আপনার ৫ গুন ৩০ = ১৫০ টা টপিক পড়া হবে। ১৫০ টা বিষয়ে জ্ঞান নেহাত ফেলনা নয়।
৭. শুরুতে যদি আপনি দৈনিক ৫ টা করে টপিক পড়ার অভ্যাস করতে পারেন দেখবেন আস্তে আস্তে সেই সংখ্যাটা বেড়ে ১০ এ চলে যাবে। যখন আপনি দৈনিক ১০ টা করে টপিক পড়তে পারবেন তখন আপনি প্রতি মাসে ১০ গুন ৩০ = ৩০০ টা টপিক পড়বেন। চিন্তা করা যায় !!!
৮. সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন কথা প্রতিদিন একবার এই খাতাটাতে চোখ বুলাবেন। দেখবেন বিভিন্ন টপিকের পাশে গোলগোল চিহ্ন দেওয়ার একটা নেশা পেয়ে বসবে। এটা একধরনের সেলফ মোটিভেশনের কাজ করবে। (চলবে...)


পরবর্তী পর্বের লেখাগুলো আপনার E-mail এ পেতে চাইলে নিচে আপনার ইমেইল ঠিকানা দিয়ে Subscribe করুন
Enter your email address:



Delivered by FeedBurner


ডা: কামরুল হাসান রাহাত
বিডিএস (ঢাকা ডেন্টাল কলেজ)
৩৫ তম বিসিএস (স্বাস্থ্য)

 আরো পড়ুন......
Inspiration: এই লেখাটি আপনার জীবনকে বদলে দিতে পারে !!! 
Read more ›››

MINISTRY OF CULTURAL AFFAIRS JOB CIRCULAR

MINISTRY OF CULTURAL AFFAIRS JOB CIRCULAR

JOB DESCRIPTION

Company/Organization: Ministry of Cultural Affairs
Positions: Computer Operator, Office Assistant & Others
Qualification: See the circular
Salary: See the circular
Deadline: May 30, 2017

Job Source: Bd-pratidin
Published Date: April 29, 2017

Jobs post by bdjobfinder.org Desk

 



MINISTRY OF CULTURAL AFFAIRS JOB CIRCULAR
Read more ›››

মাযহাব মানা কেন গুরুত্বপূর্ণ নয়...

একটু কষ্ট করে, ধৈর্য ধরে এই লেখাটা পড়ার পরে কোন মুসলমানের ই ৪(চার) মাযহাব নিয়ে কোন সন্দেহ থাকা উচিৎ নয়।


বর্তমানে সারাবিশ্বে মুসলমানের সংখ্যা আড়াইশো কোটিরও বেশী। পৃথিবীর প্রত্যেক তিনজন ব্যাক্তির মধ্যে একজন মুসলমান। অমুসলিমদের কাছে আমরা
অর্থাৎ ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা মুসলমান বলে পরিচিত হলেও মুসলিমরা নিজেদের মধ্যে অনেক নামে পরিচিত। যেমন, হানাফী, শাফেয়ী, মালেকী, হাম্বলী প্রভৃতি। এই নাম গুলি আল্লাহ বা মুহাম্মাদ (সা) এর দেওয়া নয় এমনকি যাঁদের নামে এই মাযহাব তৈরি করা হয়েছে তারাও এই নাম গুলো দেয়নি। মুসলমানদের মধ্যে প্রচলিত চারটি মাযহাব, দল বা ফিকাহ ইসলামের কোনো নিয়ম বা বিধান মেনে তৈরি করা হয়নি। কারন ইসলাম ধর্মে কোনো দলবাজী বা ফিরকাবন্দী নেই। মুসলমানদের বিভক্ত হওয়া থেকে এবং ধর্মে নানা মতের সৃষ্টি করা থেকে কঠোরভাবে সাবধান করা হয়েছে। এই মাযহাবগুলো রসুল (যা) এবং সাহাবাদের (রা) সময় সৃষ্টি হয়নি। এমনকি ঈমামগনের সময়ও হয়নি। চার ইমামের মৃত্যুর অনেক বছর পরে তাঁদের নামে মাযহাব তৈরি হয়েছে। কোরআন হাদীস ও চার ইমামের দৃষ্টিতে মাযহাব কি, কেন, মাযহাব কি মানতেই হবে, মাযহাব মানলে কি গোনাহ হবে, সে সব বিষয় নিয়ে আলোচনা করব ইনশাল্লাহ্‌!
মাযহাব তৈরিতে আল্লাহর কঠোর নিষেধাজ্ঞা
মুসলমানেরা যাতে বিভিন্ন দলে আলাদা বা বিভক্ত না হয়ে যায় সে জন্য আল্লাহ পাক আমাদের কঠোরভাবে সাবধান করেছেন। যেমন আল্লাহ তা’আলা কুরআনের সূরা আন-আমর এর ১৫৯ নম্বর আয়াতে বলেছেন ‘যারা দ্বীন সন্বন্ধে নানা মতের সৃষ্টি করেছে এবং বিভিন্ন, দলে বিভক্ত হয়েছে হে নবী! তাদের সাথে তোমার কোনও সম্পর্ক নেই; তাদের বিষয় আল্লাহর ইখতিয়ারভুক্ত। আল্লাহ তাদেরকে তাদের কৃতকর্ম সম্পর্কে অবগত করবেন। একটু থামুন। উপরের আয়াতটা দয়া করে বারবার পড়ুন এবং বোঝার চেষ্টা করুন, চিন্তা করুন। আল্লাহ তা’আলা সরাসরি বলেছেন যারা দ্বীন বা ধর্মে অর্থাৎ ইসলামে নানা মতগের সৃষ্টি করেছে এবং বিভক্ত হয়েছে, তাদের সাথে আমাদের নবী মহাম্মাদ (সা) এর কোনো সম্পর্ক নেই। যার সাথে নবীজীর (সা) কোনো সম্পর্ক নেই সে কি মুসলমান? সে কি কখনো জান্নাতের গন্ধও পাবে। আমরা মুসলমান কোরআন হাদীস মাননে ওয়ালা এটাই আমাদের একমাত্র পরিচয়। আল্লাহ বলেন এবং তোমাদের এই যে জাতি, এতো একই জাতি; এবং আমিই তোমাদের প্রতিপালক, অতএব আমাকে ভয় করো। (সূরা মুউমিনুন ২৩/৫২)। তাহলেই বুঝতেই পড়েছেন ফরয, ওয়াজীব ভেবে আপনারা যা মেনে চলছেন আল্লাহ তা মানতে কত কঠোরভাবে নিষেধ করেছেন তবে শুধু এইটুকুই নয় আল্লাহ আরও অনেক আয়াতে এ ব্যাপারে মানুষকে সাবধানবানী শুনিয়েছেন। যেমন সূরা রূমের একটি আয়াত দেখুন যেখানে আল্লাহ পাক বলছেন ‘….. তোমরা ঐ সকল মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না যারা নিজেদের দ্বীনকে শতধা বিচ্ছিন্ন করে বহু দলে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। প্রত্যেক দল নিজেদের কাছে যা আছে তা নিয়ে খুশি’ – (সূরা রুম ৩০/৩১-৩২)। বর্তমানে আমাদের সমাজের অবস্থাও ঐ মুশরিকদের মতো। ইসলামকে তারা (মাযহাবীরা) বিভিন্ন দলে বিভক্ত করেছে এবং তাদের নিজেদের কাছে যা আছে তা নিয়েই তারা খুশি। তাদের সামনে কোনো কথা উপস্থাপন করলে তারা বলেনা যে কুরআন হাদীসে আছে কি না। তারা বলে আমাদের ইমাম কি বলেছে। এরা কুরয়ান হাদীসের থেকেও ইমামের ফিকাহকে অধিক গুরুত্ব দেয়। অথচ ইসলামের ভিত্তি হচ্ছে কুরআন হাদীস। তা ছাড়া অন্য কিছু নয়। উপরের আযাতে আল্লাহ তা’আলা আমাদের উপদেশ দিয়েছেন তোমরা মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না; তোমরা ইসলামে মাযহাবের সৃষ্টি করো না। অথচ আমরা কুরআনের নির্দেশকে অগ্রাহ্য করে দ্বীনে দলের সৃষ্টি করেছি এবং নিজেকে হানাফী, মালেকী বা শাফেরী বলতে গর্ব অনুভব করছি। আল্লাহ বলেন ‘হে ইমানদারগন তোমরা আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের সামনে অগ্রগামী হয়ো না, এবং আল্লাহকে ভয় করো; আল্লাহ সর্বশ্রোতা, মহাজ্ঞানী (সূরা হুরুরতে/০১) আমার প্রিয় মাযহাবী ভাইয়েরা! এরকম কোরআনের স্পষ্ট নির্দেশ জানার পরও কি আপনারা মাযহাবে বিশ্বাসী হবেন এবং নিজেকে মাযহাবী বলে পরিচয় দেবেন। যারা জানে না তাদের কথা আলাদা। আল্লাহ বলেন ‘বলো, যারা জানে এবং যারা জানেনা তারা কি সমান? (সূরা যুমার ৩৯/০৯)। তাই আজই তওবা করে সঠিক আব্বীদায় ফিরে আসুন। আল্লাহ আমাদের সকলকে ইসলাম বোঝার তোফিক দিন। আমীন!
ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেননি
ভারতবর্ষের বিখ্যাত হাদীসশাস্ত্রবিদ ও হানাফীদের শিক্ষাগুরু যাকে হানাফীরা ভারতবর্ষের ‘ইমাম বুখারী’ বলে থাকেন সেই শাহ আলিউল্লাহ মুহাদ্দিসদেহেলভী (রহ) বলেছেন – ‘ই’লাম আন্না না-সা-কা-নু ক্কারলাল মিআতির রা-বিআতি গাইরা মুজমিয়ীনা আলাত্‌-তাকলীদিল খা-লিস লিমায় হাবিন্‌ ওয়া-হিদিন্‌ বি-আইনিহী’ অর্থাৎ তোমরা জেনে রাখো যে, ৪০০ হিজরীর আগে লোকেরা কোন একটি বিশেষ মাযহাবের উপর জমে ছিল না’ (হুজ্জাতুল্লাহিল বালেগাহ; ১৫২ পৃষ্ঠা)। অর্থাৎ ৪০০ হিজরীর আগে নিজেকে হানাফী, শাফেরী বা মালেকী বলে পরিচয় দিতো না। আর চারশো হিজরীর অনেক আগে ইমামরা ইন্তেকাল করেন। ইমামদের জন্ম ও মৃত্যুর সময়কালটা একবার জানা যাক তাহলে ব্যাপারটা আরও স্পষ্ট হয়ে যাবে।
ইমামের নাম জন্ম মৃত্যু
আবু হানীফা (রহ) ৮০ হিজরী ১৫০ হিজরী
ইমাম মালেক (রহ) ৯৩ হিজরী ১৭৯ হিজরী
ইমাম শাকেরী (রহ) ১৫০ হিজরী ২০৪ হিজরী
আহমদ বিন হাম্বাল (রহ) ১৬৪ হিজরী ২৪১ হিজরী
বিশিষ্ট হানাফী বিদ্বান শাহ ওলিউল্লাহ দেহেলভী (রহ) এর কথা যদি মেনে নেওয়া যায় যে ৪০০ হিজরীর আগে কোনো মাযহাব ছিল না, এবং ৪০০ হিজরীর পরে মানুষেরা মাযহাব সৃষ্টি করেছে, তার মানে এটা দাঁড়ায় যে আবু হানীফার ইন্তেকালের ২৫০ বছর পর হানাফী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। ইমাম মালেকের ইন্তেকালের ২২১ বছর পর মালেকী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। ইমাম শাফেরীর ইন্তেকালের ১৯৬ বছর পরে শাফেরী মাযহাব এবং ইমাম আহমাদের ইন্তেকালের ১৫৯ বছর পর হাম্বলী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। অর্থাৎ ইমামদের জীবিত অবস্থায় মাযহাব সৃষ্টি হয়নি। তাঁদের মৃত্যুর অনেকদিন পরে মাযহাবের উদ্ভব হয়েছে। আর একবার চিন্তা করে দেখুন মাযহাব বা দল সৃষ্টি করাতে কোরআন ও হাদিসে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মহামান্য ইমামরা ছিলেন কোরআন হাদীসের পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুসারী এবং ধর্মপ্রান মুসলিম। তাঁরা কি কোরআন হাদীসকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে মাযহাব তৈরি করবেন যা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ, এটা কখনো হতে পারে? যারা বলে ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেছেন তারা হয় মুর্খ নয় বেইমান। তারা ইমামদের প্রতি অপবাদ দেয়।
মাযহাব সৃষ্টি হল কিভাবে
ফারসীতে একটি প্রবাদ আছে ‘মান তোরা হাজী গো ইয়াম তু মোরা হাজী বোগো’ অর্থাৎ একজন লোক আর একজনকে বলছে, ভাই! যদিও তুমি হাজী নও তথাপি আমি তোমাকে হাজী সাহেব বলছি এবং যদিও আমি হাজী নই তুমি আমাকে হাজী সাহেব বলো। এভাবে একে অপরকেহাজী সাহেব বলে ডাকার ফলে আমরা দু-জনেই হাজী সাহেব হয়ে যাবো। এভাবেই আবু হানীফার অনুসারীদের অথবা তাঁর ফতোয়া মান্যে ওয়ালাদের অন্যেরা হানাফী একইভাবে ইমাম মালেকের ফতোয়া মাননে ওয়ালাদের মালেকী বলে ডাকাডাকির ফলে মাযহাবের সৃষ্টি হয়েছে। আজ যা বিরাট আকার ধারন করেছে। আবু হানীফা (রহ) বা তাঁর শিষ্যরা কখনো বলেননি আমাদের ফতোয়া যারা মানবা তারা নিজেদের পরিচয় হানাফী বলে দিবা। অথবা ইমাম মালেক বা শাফেয়ীও বলে যাননি যে আমার অনুসারীরা নিজেকে মালেকী বা শাফেয়ী বলে পরিচয় দিবা। ইমামরা তো বটেই এমনকি ইমামদের শাগরেদরা কিংবা তাঁর শাগরেদদের শাগরেদরাও মাযহাব সৃষ্টি করতে বলেননি। যখন আমাদের মহামতি ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেননি এবং করতেও বলেননি তখন উনাদের নামে মাযহাব সৃষ্টি করার অধিকার কেন দিল?
হাদীস বিরোধী বক্তব্যের ব্যাপারে ইমামদের রায়
মাযহাবীদের মধ্যে কিছু লোক দেখা যায় যারা ইমামদের তাক্কলীদ করে অর্থাৎ অন্ধ অনুসরন করে। তারা ইমামদের বক্তব্যকে আসমানী ওহীর মতো মানে। কোরআন-হাদিস বিরোধী কোনো রায় হলেও তাতে আমল করে। তাই সেই সব লোকদের জন্য হাদীস অনুসরনের ব্যাপারে ইমামদের মতামত এবং তাদের হাদীস বিরোধী বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করার ব্যাপারে তাদের কয়েকটি উক্তি দেওয়া হল। ইনশাল্লাহ্‌! মাযহাবী ভাইয়েরা এ থেকে অনেক উপকারিত হবেন।
আবু হানীফা (রহ)
১) যখন হাদীস সহীহ হবে, তখন সেটাই আমার মাযহাব অর্থাৎ হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব। (ইবনুল আবেদীন ১/৬৩; রাসমুল মুফতী ১/৪; ঈক্কামুল মুফতী ৬২ পৃষ্ঠা)
২) কারো জন্য আমাদের কথা মেনে নেওয়া বৈধ নয়; যতক্ষন না সে জেনেছে যে, আমরা তা কোথা থেকে গ্রহন করেছি। (হাশিয়া ইবনুল আবেদীন ২/২৯৩ রাসমুল মুফতী ২৯, ৩২ পৃষ্ঠা, শা’ রানীর মীথান ১/৫৫; ইলামুল মুওয়াক্কিঈন ২/৩০৯)
৩) যে ব্যাক্তি আমার দলিল জানে না, তার জন্য আমার উক্তি দ্বারা ফতোয়া দেওয়া হারাম। (আন-নাফিউল কাবীর ১৩৫ পৃষ্ঠা)
৪) আমরা তো মানুষ। আজ এক কথা বলি, আবার কাল তা প্রত্যাহার করে নিই। – (ঐ)
৫) যদি আমি এমন কথা বলি যা আল্লাহর কিবাব ও রাসুলের (সা) হাদীসের পরিপন্থি, তাহলে আমার কথাকে বর্জন করো। (দেওয়ালে ছুড়ে মারো)। (ঈক্কাবুল হিমাম ৫০ পৃষ্ঠা)
ইমাম মালেক (রহ)
১) আমি তো একজন মানুষ মাত্র। আমার কথা ভুল হতে পারে আবার ঠিকও হতে পারে। সুতরাং তোমরা আমার মতকে বিবেচনা করে দেখ। অতঃপর যেটা কিতাব ও সুন্নাহর অনুকুল পাও তা গ্রহন কর। আর যা কিতাব ও সুন্নাহর প্রতিকুল তা বর্জন করো। (জানেউ বায়ানিল ইলম ২/৩২, উসুলুল আহকাম ৬/১৪৯)
২) রাসুলুল্লাহ (সা) এর পর এমন কোনো ব্যাক্তি নেই যার কথা ও কাজ সমালোচনার উর্ধে। একমাত্র রাসুলুল্লাহ (সা) ই সমালোচনার উর্ধে। (ইবনু আবদিল হাদী, ১ম খন্ড, ২২৭ পৃষ্ঠা, আল ফতোয়া – আসসাবকী, ১ম খন্ড ১৪৮ পৃষ্ঠা, উসুলুল আহকাম ইবনু হাযম, ষষ্ঠ খন্ড ১৪৫ – ১৭৯ পৃষ্ঠা)।
৩) ইবনু ওহাব বলেছেন, আমি ইমাম মালেককের উয়ব মধ্যে দুই পায়ের আঙ্গুল খেলাল করার বিষএ এক প্রশ্ন করতে শুনেছি। তিনি বলেন লোকদের জন্য এটার প্রয়োজন নীই। ইবনু ওহাব বলেন, আমি মানুষ কমে গেলে তাঁকে নিরিবিলে পেয়ে বলি ‘তাতো আমাদের জন্য সুন্নাহ। ইমাম মালেক বলেন, সেটা কি? আমি বললাম, আমরা লাইস বিন সাদ, ইবনু লোহাইআ, আমর বিন হারেস, ইয়াবিদ বিন আমার আল-মা আফেরী, আবু আবদুর রহমান আল হাবালী এবং আল মোস্তাওরাদ বিন শাদ্দাদ আল কোরাশী এই সুত্র পরম্পরা থেকে জানতে পেরেছি যে, শাদ্দাদ আল কোরাশী বলেন, আমি রাসুল (সা) কে কনিষ্ঠ আঙ্গুল দিয়ে দুই পায়ের আঙ্গুল খেলাল করতে দেখেছি। ইমাম মালেক বলেন, এটা তো সুন্দর হাদীস। আমি এখন ছাড়া আর কখনো এই হাদীসটি শুনিনি। তারপর যখনই তাকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে, তখনই তাঁকে পায়ের আঙ্গুল খেলাল করার আদেশ দিতে আমি শুনেছি। (মোকাদ্দামা আল জারাহ ওয়াত তা দীল- ইবনু হাতেমঃ ৩১- ৩২ পৃষ্ঠা)
ইমাম শাফেরীঃ-
১) হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব। (মাজমু ১/৬৩; শা’রানী ১/৫৭)
২) আমি যে কথাই বলি না কেন অথবা যে নীতিই প্রনয়ন করি না কেন, তা যদি আল্লাহর রাসুল (সা) এর নিকট থেকে বর্ণিত (হাদীসের) খিলাপ হয়, তাহলে সে কথাই মান্য, যা রাসুল (সা) বলেছেন। আর সেটাই আমার কথা। (তারীখু দিমাশ্‌ক; ইলামুল মুওয়াক্কিঈন ২/৩৬৬,৩৬৪)
৩) নিজ ছাত্র ইমাম আহমাদকে সম্বোধন করে বলেন) হাদীস ও রিজাল সম্বন্ধে তোমরা আমার চেয়ে বেশি জানো। অতএব হাদীস সহীহ হলে আমাকে জানাও, সে যাই হোক না কেন; কুকী, বাসরী অথবা শামী। তা সহীহ হলে সেটাই আমি আমার মাযহাব (পন্থা) বানিয়া নেবো। (ইবনু আবী হাতীম ৯৪-৯৫ পৃষ্ঠা; হিলয়াহ ৯/১০৬)
৪) আমার পুস্তকে যদি আল্লাহর রাসুল (সা) এর সুন্নাহের খেলাপ কে কথা পাও, তাহলে আল্লাহর রাসুল (সা) এর কথাকেই মেনে নিও এবং আমি যা বলেছি তা বর্জন করো। (নাওয়াবীর মা’জমু ১/৬৩; ইলামূল মুওয়াক্কিঈন ২/৩৬১)
৫) যে কথাই আমি বলি না কেন, তা যদি সহীহ সুন্নাহর পরিপন্থি হয়, তাহলে নবী (সা) এর হাদীসই অধিক মান্য। সুতরাং তোমরা আমার অন্ধানুকরন করো না। (হাদীস ও সুন্নাহর মুল্যমান ৫৪ পৃষ্ঠা)
৬) নবী (সা) থেকে যে হাদীসই বর্ণিত হয়, সেটাই আমার কথা; যদিও তা আমার নিকট থেকে না শুনে থাকো। (ইবনু আবী হাতীম ৯৩-৯৪)
ইমাম আহমাদ
১) তোমরা আমার অন্ধানুকরন করো না, মালেকেরও অন্ধানুকরন করো না। অন্ধানুকরন করো না শাফেরীর আর না আওয়ারী ও ষত্তরীব বরং তোমরা সেখান থেকে তোমরা গ্রহন কর যেখান থেকে তারা গ্রহন করেছেন। (ইলামুল মোয়াক্কিঈন ২/৩০২)
২) যে ব্যক্তি আল্লাহর রাসুল (সা) এর হাদীস প্রত্যাখ্যান করে, সে ব্যক্তি ধ্বংসোন্মুখ। (ইবনুল জাওযী ১৮২ পৃষ্ঠা)
৩) আওযাঈ; ইমাম মালেক ও ইমাম আবু হানীফার রায় তাদের নিজস্ব রায় বা ইজতিহাদ। আমার কাছে এসবই সমান। তবে দলিল হল আসার অর্থাৎ সাহাবী ও তাবেঈগনের কথা। (ইবনু আবদিল বার-আল-জামে, ২ খন্ড, ১৪৯ পৃষ্ঠা) ইমামদের এই সকল বক্তব্য জানার পর আমরা বলতে পারি প্রকৃতই যারা ইমামদের ভালোবাসেন, শ্রদ্ধা করেন, মান্য করেন তারা ইমামদের কথা অনুযায়ী চলবেন এবং সহীহ হাদীসকেই নিজের মাযহাব বানাবেন। তাক্কলীদ করবেন না। সরাসরী সেখান থেকে গ্রহন করবেন যেখান থেকে ইমামরা করেছেন অর্থাৎ সরাসরী হাদীস কোরয়ান থেকে। ইমামরা কোনো বিষয়ে ভুল ফতোয়া (সহীহ হাদীস তাঁদের কাছে না পৌছানোর কারনে) দিয়ে থাকলে তা প্রত্যাখ্যান করা এবং সহীহ হাদীসের উপর আমল করা। আল্লাহ আমাদের সকলকে ইসলাম বোঝার ও সহীহ্ হাদীসের উপর আমল করার তৌফিক দিন। আমীন!


current24bdnews
Read more ›››

তৃতীয় অধ্যায় জীবনের জন্য পানি

প্রাথমিক বিজ্ঞান




বেঁচে থাকার জন্য আমাদের পানির প্রয়োজন। উদ্ভিদও খাদ্য তৈরিসহ নানা কাজে পানি ব্যবহার করে


তৃতীয় অধ্যায়

জীবনের জন্য পানি



সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন

১। উদ্ভিদ মাটি থেকে কিছু উপাদান শোষণ করে। এ উপাদানগুলো কী কী?

উত্তর : উদ্ভিদ মাটি থেকে পানি ও পুষ্টি উপাদান শোষণ করে।

২। আমরা বিভিন্নভাবে উদ্ভিদের ওপর নির্ভরশীল। এ উদ্ভিদ থেকে আমরা কী পাই?

উত্তর : উদ্ভিদ থেকে আমরা কাঠ, পাতা ও ফলমূল পাই।

৩। আর্সেনিক কী?

উত্তর : আর্সেনিক হলো বিষাক্ত পদার্থ, যা মাটির নিচে আর্সেনিকের খনিজ হিসেবে থাকে।

৪। কিভাবে পানি দূষিত হয়, তার দুটি কারণ লেখো।

উত্তর : পানিদূষণের দুটি কারণ হলো—

১. কল-কারখানার ক্ষতিকর বর্জ্য পানিতে ফেলা।

২. পয়োনিষ্কাশন, কাপড় ধোয়া, গোসল ইত্যাদির মাধ্যমে পানি দূষিত হয়।

৫। পানি পুরোপুরি নিরাপদ করতে হলে কী করতে হবে?

উত্তর : পানি পুরোপুরি নিরাপদ করতে হলে ফুটাতে হবে।

৬। হ্যালোজেন ট্যাবলেট কখন ব্যবহার করা হয়?

উত্তর : বন্যা বা জলোচ্ছ্বাসের সময় যখন ফুটিয়ে পানি বিশুদ্ধ করা যায় না, তখন হ্যালোজেন ট্যাবলেট ব্যবহার করা হয়।

৭। কোন প্রক্রিয়ায় জলীয় বাষ্প মেঘে পরিণত হয়?

উত্তর : ঘনীভবন  প্রক্রিয়ায় জলীয় বাষ্প মেঘে পরিণত হয়।

৮। দুটি পানিবাহিত রোগের নাম লেখো।

উত্তর : দুটি পানিবাহিত রোগের নাম—


১. ডায়রিয়া, ২. আমাশয়

৯। পানি শোধনের দুটি উপায় লেখো।

উত্তর : পানি শোধনের দুটি উপায় হচ্ছে ছাঁকন ও থিতানো।

১০। ছাঁকন কী?

উত্তর : ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে পানি পরিষ্কার করার প্রক্রিয়াই হলো ছাঁকন।

১১। মানবদেহের কত শতাংশ পানি?

উত্তর : মানবদেহের ৬০-৭০ শতাংশ পানি।

১২। কোন পানি কোনোভাবেই নিরাপদ করা যায় না?

উত্তর : আর্সেনিকযুক্ত নলকূপের পানি কোনোভাবেই নিরাপদ করা যায় না।

১৩। বিশুদ্ধ পানির একটি উেসর নাম লেখো।

উত্তর : বিশুদ্ধ পানির একটি উেসর নাম হলো নলকূপ।

১৪। শিশির কাকে বলে?

উত্তর : রাতের বেলা ঘাস, গাছপালা ইত্যাদির ওপর যে বিন্দু বিন্দু পানি জমে তাকে শিশির বলে।

১৫। পানির তিনটি অবস্থা কী কী?

উত্তর : পানির তিনটি অবস্থা হলো—কঠিন, তরল ও গ্যাসীয়।



কাঠামোবদ্ধ প্রশ্ন

প্রশ্ন : পানিদূষণ কী? পানিদূষণের চারটি কারণ লেখো।

উত্তর : পানিদূষণ : পানিদূষণ হলো পানিতে ক্ষতিকর কোনো কিছু মিশে থাকা, যা আমাদের শরীরে রোগ সৃষ্টি করে। নিচে পানিদূষণের চারটি কারণ উল্লেখ করা হলো :

১. পুকুর বা নদীর পানিতে বাসনকোসন মাজা, গোসল করা, ময়লা কাপড় কাচা, পাট পচানো, পায়খানা-প্রস্রাব করা, প্রাণীর মৃতদেহ ফেলা প্রভৃতির ফলে পানি দূষিত হয়।

২. রোগীর মলমূত্র, বিছানাপত্র ও জামা-কাপড় পানিতে ধুলে রোগের জীবাণু মিশে পানি দূষিত করে।

৩. কল-কারখানার বর্জ্য পদার্থ পানিতে ফেললে।

৪. কৃষিকাজে ব্যবহৃত অতিরিক্ত সার ও কীটনাশক বৃষ্টির পানিতে ধুয়ে খাল-বিল ও নদীর পানির সঙ্গে মিশে পানি দূষিত করে।

প্রশ্ন : রিপনদের পুকুরের পানি গ্রীষ্মকালে শুকিয়ে যায় এবং বর্ষাকালে কানায় কানায় ভরে যায়। পানির এরূপ পরিবর্তন কোন প্রক্রিয়াটির জন্য হয়? এ প্রক্রিয়াটির চারটি ধাপ উল্লেখ করো।

উত্তর : পুকুরের পানিতে  সময়ের তারতম্যে যে পরিবর্তন দেখা যায় তা মূলত পানিচক্রের কারণেই হয়।

পানিচক্রের চারটি ধাপ নিচে উল্লেখ করা হলো :

১. সূর্যের তাপে পুকুর, খাল-বিল, নদী ও সমুদ্রের পানি জলীয় বাষ্পে পরিণত হয়।

২. জলীয় বাষ্প বায়ুমণ্ডলের ওপরের দিকে উঠে ঠাণ্ডা হওয়ার পর ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পানিকণায় পরিণত হয়।

৩. ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পানিকণা একত্র হয়ে আকাশে মেঘ হিসেবে ঘুরে বেড়ায়।

৪. মেঘের পানিকণাগুলো একত্র হয়ে যখন বড় আকার ধারণ করে, তখন বৃষ্টিরূপে ভূপৃষ্ঠে পতিত হয়।


দিলারা ইয়াছমীন, সহকারী শিক্ষক,
 আইডিয়াল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মতিঝিল, ঢাকা 

e-Schoolbd সবার জন্য শিক্ষা
Read more ›››

১০০ জন নিয়োগ পাচ্ছেন সমবায় অধিদপ্তরে

১০০ জন নিয়োগ পাচ্ছেন সমবায় অধিদপ্তরে
১০০ জন নিয়োগ পাচ্ছেন সমবায় অধিদপ্তরেসমবায় অধিদপ্তরের বাস্তবায়নাধীন উন্নত জাতের গাভী পালনের মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য জনবল নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। দেশের ২৫টি জেলার ৫০টি উপজেলায় ফ্যাসিলিটেটর পদে ৫০ জন এবং এলএফএআই (কৃত্রিম প্রজননকারী) পদে ৫০ জনসহ মোট ১০০ জন প্রার্থী এই অস্থায়ী নিয়োগ পাবেন। ফ্যাসিলিটেটর যেকোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক বা সমমানের ...বিস্তারিত
Read more ›››

OPPO Bangladesh Communication Equipment Co.Ltd Job Circular 2017

OPPO Bangladesh Communication Equipment Co.Ltd Job Circular 2017

OPPO Bangladesh Communication Equipment Co. Ltd.

Category: Marketing/Sales
Vacancy : 03
Job Description / Responsibility
  1. Have to move all over bangladesh to conscientiously implement the corporate rules and regulations, strive to improve sales skills and ability.
  2. Sales promoter recruitment, training and management.
  3. Follow up the target; reach the sales target and terminal management Accomplish sales training and organization mission by completing related results as needed.
  4. Coordinate relationship among shops and sales promoter relationship with the shop. Develop instructional material for sales trainees.
  5. Make promotion and growth plan for each sales promoter.
  6. Make regional training system and plan and standardize management regionally.
  7. Manage the temporary sales team, implement shop temporary plan.
  8. Determines training needs by traveling with sales monitors/sales promoters; observing sales encounters; studying sales results reports; conferring with sales managers.
  9. Develops individual results by maintaining policy and procedure resources; providing coaching; conducting training sessions; developing outcome improvement resources.
  10. Improves training effectiveness by developing new approaches and techniques; making support readily available; integrating support with routine job functions.
Job Nature

Full-time

Educational Requirements
  1. BBA/ MBA (Major in Marketing) with good academic background from any reputed university. Additional certification in training is a plus.
  2. Fresh Graduates with high interpersonal and communication skills are encouraged to apply.
Experience Requirements
  1. Na
  2. The applicants should have experience in the following area(s):
    Sales, Trading/Wholesale/Indenting
  3. The applicants should have experience in the following business area(s):
    Mobile Accessories
Job Requirements
  1. Only males are allowed to apply.
  2. Proven work experience as a Sales training specialist or Sales training coordinator.
  3. Extensive knowledge of learning principles and modern training techniques.
  4. An ability to manage the full training cycle.
  5. Proficiency in MS Office, MS Power Point, MS Excel.
  6. Understanding of sales process, preferably with customer service experience.
  7. Excellent communication and presentation skills.
  8. Strong organizational and team management skills.
Job Location

Barisal Division, Chittagong Division, Dhaka Division, Khulna Division, Rajshahi Division, Sylhet Division

Other Benefits
  1. We offer a working environment, which is challenging but ultimately rewarding for the most talented and dedicated professional.
  2. Amazing career opportunity with faster career growth.
  3. Two Festival Bonus.
  4. Yearly Award for Outstanding Employees.
  5. Full attendance bonus.
  6. Over than one year seniority bonus.
Job Source

Online Job Posting

Send your CV to career@oppobangladesh.com

This job will be fast-paced and creative and can grow into a management role as our company expands. Interested candidates may apply in confidence with a detailed CV and a cover letter supporting the qualification of the candidate for the position through hrda.oppo.bd@gmail.com.

Applicant must enclose his/her Photograph with CV.

Application Deadline : May 29, 2017



OPPO Bangladesh Communication Equipment Co.Ltd Job Circular 2017
Read more ›››

OPPO Bangladesh Communication Equipment Co. Ltd Job Circular 2017

OPPO Bangladesh Communication Equipment Co. Ltd Job Circular 2017


Sales Monitor/ Sales Trainer

OPPO Bangladesh Communication Equipment Co. Ltd.

Category: Marketing/Sales
Vacancy

03

Job Description / Responsibility
  • Have to move all over bangladesh to conscientiously implement the corporate rules and regulations, strive to improve sales skills and ability.
  • Sales promoter recruitment, training and management.
  • Follow up the target; reach the sales target and terminal management Accomplish sales training and organization mission by completing related results as needed.
  • Coordinate relationship among shops and sales promoter relationship with the shop. Develop instructional material for sales trainees.
  • Make promotion and growth plan for each sales promoter.
  • Make regional training system and plan and standardize management regionally.
  • Manage the temporary sales team, implement shop temporary plan.
  • Determines training needs by traveling with sales monitors/sales promoters; observing sales encounters; studying sales results reports; conferring with sales managers.
  • Develops individual results by maintaining policy and procedure resources; providing coaching; conducting training sessions; developing outcome improvement resources.
  • Improves training effectiveness by developing new approaches and techniques; making support readily available; integrating support with routine job functions.
Job Nature

Full-time

Educational Requirements
  • BBA/ MBA (Major in Marketing) with good academic background from any reputed university. Additional certification in training is a plus.
  • Fresh Graduates with high interpersonal and communication skills are encouraged to apply.
Experience Requirements
  • Na
  • The applicants should have experience in the following area(s):
    Sales, Trading/Wholesale/Indenting
  • The applicants should have experience in the following business area(s):
    Mobile Accessories
Job Requirements
  • Only males are allowed to apply.
  • Proven work experience as a Sales training specialist or Sales training coordinator.
  • Extensive knowledge of learning principles and modern training techniques.
  • An ability to manage the full training cycle.
  • Proficiency in MS Office, MS Power Point, MS Excel.
  • Understanding of sales process, preferably with customer service experience.
  • Excellent communication and presentation skills.
  • Strong organizational and team management skills.
Job Location

Barisal Division, Chittagong Division, Dhaka Division, Khulna Division, Rajshahi Division, Sylhet Division

Salary Range
Negotiable
Other Benefits
  • We offer a working environment, which is challenging but ultimately rewarding for the most talented and dedicated professional.
  • Amazing career opportunity with faster career growth.
  • Two Festival Bonus.
  • Yearly Award for Outstanding Employees.
  • Full attendance bonus.
  • Over than one year seniority bonus.
Job Source

Online Job Posting

Send your CV to career@oppobangladesh.com
This job will be fast-paced and creative and can grow into a management role as our company expands. Interested candidates may apply in confidence with a detailed CV and a cover letter supporting the qualification of the candidate for the position through hrda.oppo.bd@gmail.com.

Applicant must enclose his/her Photograph with CV.

Application Deadline : May 29, 2017

Company Information

OPPO Bangladesh Communication Equipment Co. Ltd.

Address : 144, Police Plaza Concord, Tower B, Floor # 9, Gulshan # 01, Dhaka – 1212, Bangladesh


Read more ›››

Akij Food & Beverage Ltd Job Circular on April 2017

Akij Food & Beverage Ltd Job Circular on April 2017

Akij Food and Beverage Ltd. (A Unit of Akij Group)

Category: Marketing/Sales

Job Description / Responsibility

  1. Regular communicate with Buyers.
  2. Monitoring the Sales and Distribution of export product.
  3. Negotiate and contact with foreign distributor regarding sales.
  4. Prepare monthly sales forecasting report.
  5. Conduct export oriented correspondences and credit collections.

Job Nature

Full-time

Educational Requirements

Masters/ MBA in marketing preferably from any reputed public/ private university.

Experience Requirements

  1. 1 to 2 year(s)
  2. The applicants should have experience in the following area(s):
    Sales, International/Export Marketing

Job Requirements

  1. Age 27 to 37 year [s]
  2. Only males are allowed to apply.
  3. Excellent communication skill in English and Bangla and others foreign language will be add as an advantage.
  4. Excellent in Microsoft office application and we prefer advance IT knowledge.
  5. Experience in sales & Marketing.
  6. Commercial experience in export will be treated as an advantage.

Job Location

Dhaka Division

Salary Range

Negotiable

Other Benefits

  1. An intensive and high quality training program, personal development program and continuous career development opportunities.
  2. Excellent working conditions.
  3. Collegial, comfortable and professional working environment.
  4. Festival Bonus.
  5. Provident Fund.
  6. Gratuity.
  7. Privilege Leave.
  8. Group insurance coverage

Job Source

Online Job Posting

Send your CV to career.afbl@akij.net

Applicant must enclose his/her Photograph with CV.

Application Deadline : May 9, 2017



Akij Food & Beverage Ltd Job Circular on April 2017
Read more ›››

BSRM Group of Companies Job Circular on April 2017

BSRM Group of Companies Job Circular on April 2017


Team Member – Electrical [Mirsharai, Chittagong]

BSRM Group of Companies

Category: Engineer/Architect
Vacancy
  • 02
Job Description / Responsibility
  • Accomplish preventive / predictive maintenance Plan / Schedule of Electrical equipment in the plant.
  • Solve any power sub-station and HT Line related issues.
  • Resolve and escalate issues pertaining to maintenance of equipment’s as and when required.
  • Implement the SOPs and work instructions and provide feedback to the superior.
  • Achieve Electrical Breakdown target.
  • Maintenance EAM (Enterprise Asset Management) functional activities in ERP.
  • Analyze the power consumption data and identify scope for saving and advice the users ways to reduce it.
  • Ensure healthiness of emergency and backup power scheme as well as equipment’s.
  • Ensure maintenance of relevant software, programs and data for PLC Drives, HMI, OWS, FDA etc.
  • Monitor Availability of the Electrical Spare and the cost maintained within the department budget.
Job Nature

Full-time

Educational Requirements
Bachelor degree in Electrical engineering from BUET/ CUET/ KUET/ RUET
Experience Requirements
  • At least 3 year(s)
  • The applicants should have experience in the following business area(s):
    Steel, Cement Industry, Paper
Job Requirements
  • Age 25 to 32 year(s)
  • Having 03-05 years working experience in Steel Re-rolling & Melting Plant.
  • Hard working & Able to work under pressure.
  • Good communication skills in English.
  • Good in MS Office (Excel, Word, PowerPoint etc.).
Job Location

Chittagong

Other Benefits
As per company policy.
Job Source
  • Online Job Posting

Applicant must enclose his/her Photograph with CV.

Application Deadline : May 6, 2017


Company Information

BSRM Group of Companies

Address : Corporate Office, Ali Mansion,1207/1099, Sadarghat Road, Chittagong


Read more ›››

Nitol Motors Limited Job Circular on April 2017

Nitol Motors Limited Job Circular on April 2017


Manager – Customs & VAT

Nitol Motors Limited

 

Category: Accounting/Finance
Job Description / Responsibility
  • To perform, update & supervise overall functions of Registration of Central & Units of a Centrally Registered reputed Organization;
  • To create, examine & supervise Tax Invoices, Input Tax documents, Credit & Debit notes, etc. with a view to creating monthly return;
  • To perform & supervise Audit activities and to respond audit objection of any government audit authorities;
  • To maintain proper communication & liaison with VAT authorities;
  • To train up concerned VAT related staff & officials on the existing as well as changed rules & regulations;
  • To make correspondence independently both in English & Bengali with the VAT, Govt. authorities & any other organization;
  • Any other job to be allotted by the appointing authority.
Job Nature

Full-time

Educational Requirements
M.S.S (Economics, Accounting & Finance); MBA (Major-Finance, Accounting)
Experience Requirements
  • At least 5 year(s)
Job Requirements
  • Need to work under the new Online VAT System;
  • To be skilled in IT with composition of letter both in English & Bengali.
Job Location

Dhaka

Salary Range
Negotiable
Job Source
  • Online Job Posting
Application Deadline : May 29, 2017
Company Information

Nitol Motors Limited

Address : Nitol Motors Ltd, Nitol Niloy Centre, 71 Mohakhali C/A, Dhaka-1212.


Read more ›››
Copyright © ejobscircular24